Breaking News

২০ টাকা দিয়ে প্র’তিদিন ধ’র্ষণ করত, ৪র্থ শ্রে’ণির ছা’ত্রীকে

মা’মলার এ’জহারে জানা যায়, ৮ জুন ওই শিশুকে ২০ টাকা দেওয়ার কথা বলে সোহেল তার খালি ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে ওই শিশুকে ধ’র্ষণ করে তার হাতে ২০ টাকা দিয়ে বলে কারও কাছে যেন এ ঘটনা না বলে, আর বললে প্রাণে মে’রে ফেলবে। এতদিন ওই শিশু প্রা’ণের ভ’য়ে কারও কাছে না বললেও মঙ্গলবার

ভু’ক্তভো’গী ওই শিশু জানায়, সোহেল তাকে ঈদের পর থেকে নিয়মিতভাবে ভয়ভী’তি দেখিয়ে ধ’র্ষণ করে আসছে। কারও কাছে বললে মে’রে ফেলারও হু’মকি দিতোকুমিল্লার দেবিদ্বারে ১১ বছরের এক মাদ্রাসা ছাত্রী ধ’র্ষ’ণের অ’ভিযোগে মো. সোহেল (২৪) নামের এক সিএনজি অটোরিকশা

সকালে ফের ওই শিশুকে একই কায়দায় ধ’র্ষণ করলে মেয়েটি মায়ের কাছে এ ঘটনা খুলে বলে। তারপর ঘটনা প্রকা’শ্যে আসে।ভু’ক্তভো’গী ওই শিশুর মা জানান, সোহেল আমার মেয়েকে ভ’য় দেখিয়ে নিয়মিত ধ’র্ষ’ণ করতো। মেয়ে এতোদিন ভয়ে কিছু বলেনি। সকালে আমার মেয়ে অসু’স্থবোধ

করলে আমি তার কারণ জিজ্ঞাসা করি। পরে আমার মেয়ে এ ধ’র্ষণের ঘটনা খুলে বললে আমি এলাকার মানুষের সহযোগিতায় থা’নায় জানাই।দেবিদ্বার থানার ওসি মো. জহিরুল আনোয়ার জানান, শিশুটিকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অ’ভিযুক্ত সোহেলকে আ’টক করা হয়েছে।

আরো পড়ুন পু’লিশের অভি’যানে গেস্ট হাউস থেকে ৬৭ যুবতী উ’দ্ধার! নারীকে ব্যবহার করে পাতা ফাঁ’দ বা বারে অ’ভিযান চালিয়ে পু’লিশ ও অন্যান্য কর্মক’র্তারা ৬৭ যুবতী ও অল্প সংখ্যক যুবককে উ’দ্ধা’র করেছে। মধ্যপ্রদেশে নারীদের ব্যবহার করে পাতা ‘হানি ট্রা’প’ ঘটনায় জ’ড়িত থাকার অ’ভিযোগ আছে ইন্দোর-ভিত্তিক একজন ব্যবসায়ীর।

তার নাম জিতেন্দর সোনি। তিনি স্থানীয় একটি পত্রিকার মালিক। তার একটি নাইট ক্লাব ও অন্যান্য স্থাপনা থেকে ওইসব যুবতী ও যুবকদের উ’দ্ধা’র করে পু’লিশ। এসব যুবক-যুবতী সেখানে বার ড্যান্সার হিসেবে কাজ করতো। শনিবার রাতে জিতেন্দর সোনির বাসভবন ও অন্যান্য স্থাপনায় অ’ভিযান চালায় পু’লিশের একটি টিম।

সিনিয়র এসপি রুচি বর্ধন মিশ্র বলেছেন, অ’ভিযুক্ত জিতেন্দর সোনি পলাতক রয়েছেন। তার ছেলে অমিত সোনিকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। যুবতীদের আ’ট’কে রেখে এভাবে ব্যবসা করায় অমিত সোনির ভূমিকার বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছে পু’লিশ।

মধ্যপ্রদেশে হানি ট্রা’প চ’ক্রের সঙ্গে প্রভাবশালী রাজনীতিক ও আমলাদের জ’ড়িত থাকার একটি অডিও-ভিডিও ক্লিপ প্রকাশ করে তার স্থানীয় পত্রিকা ‘সাঞ্ঝা লোকস্বামী’। এরপরই পু’লিশ তৎপর হয়। জিতেন্দর সোনির অফিসে এভাবে ত’ল্লা’শির নি’ন্দা জানিয়েছে ইন্দোর প্রেসক্লাব ও সাংবাদিকদের অন্য সংগঠনগুল

তারা সেখানে থেকে উ’দ্ধা’র করে ওই যুবতীদের। তাদেরকে একটি আশ্রয়ে রাখা হয়েছে এবং তাদের বক্তব্য রেকর্ড করেছে পু’লিশ। পু’লিশের মতে, এসব যুবতীর বেশির ভাগই আসাম ও পশ্চিমবঙ্গের।

তাদেরকে গীতা ভবন ক্রসিংয়ে জিতেন্দর সোনি পরিচালিত বার ‘মাই হোম’-এ রাখা হয়েছিল খুব নাজুক পরিবেশে। এসব যুবতীকে বার-এ নাচতে বা’ধ্য করা হতো। কাস্টমা’ররা যে অর্থ দিতেন তার থেকে সামান্য অংশই পেতেন ওই যুবতীরা।

About Utsho

Check Also

ভরিতে স্বর্ণের দাম বা’ড়লো ২৩৩৩ টাকা

ভরিতে স্বর্ণের দাম ২ হাজার ৩৩৩ টাকা বাড়িয়ে নতুন মূল্য নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.