Breaking News

হাটে গিয়ে নিজেই ‘গরু’ হয়ে গেলাম : মিশা সওদাগর

‘স্বামী কেন আসামী’ সিনেমা দিয়ে আমি পরিচিতি পেয়েছি। সিনেমাটি কোরবানির ঈদে মুক্তি পেয়েছিল। আমি সেদিন দেরি করে নামাজ পড়েছিলাম। নামাজ পড়ে বের হয়েছি তখন দুলাভাই ফোন করে বলল- কিরে! তুই তো স্টার হয়ে গেলি।

আমি প্রথমে বুঝতে পারিনি। পরে খোঁজ নিয়ে দেখলাম, ‘স্বামী কেন আসামী’ দেখার জন্য সিনেমা হলের ভেতরে যত মানুষ, বাইরে তার দ্বিগুণ অ’পেক্ষা করছে! মনে পড়ছে সেইসব দিনের কথা। আমাদের এমন অনেক সিনেমা হয়েছে যেগুলো ২৯ সপ্তাহ ধরে সিনেমা হলে চলেছে।

এখন ঈদের সময় অজুহাত দেখিয়ে বলে- ঈদ করতে মানুষ ঢাকার বাইরে চলে গেছে। তাই দর্শক কম! তখন ঈদে শতকরা ৯০ ভাগ সিনেমা’র প্রথম দিন থেকেই দর্শক টিকেট পেত না। তখন সিনেমা হলে ক্রাউড ছিল। এফডিসি, কাকরাইল পাড়ায় ভিড় লেগে থাকতো।

সবাই ব্যস্ত। ঈদের চার-পাঁচদিন আগেই পেমেন্ট নিতাম। আমা’র পেমেন্ট ছিল ২০-২৫ হাজার টাকা। একবার ঈদে পেমেন্ট পেলাম ৯৫ হাজার টাকা। এরপর পাঁচ লাখ টাকাও পেয়েছি কিন্তু ঐ ৯৫ হাজার টাকার আনন্দ আজও ভুলতে পারি না। তখন ফরিদী ভাই চার লাখ টাকাও পেমেন্ট পেয়েছেন!

আমি আগে সবাই মিলে ভাগে কোরবানি দিতাম। একবার ভালো পেমেন্ট পেয়ে নিজেই গরু কোরবানি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। ভাবনা অনুযায়ী গরু কিনতে হাটে গেলাম। গিয়ে আমি নিজেই ‘গরু’ হয়ে গেলাম! সবাই চিনে ফেলেছে। এক পর্যায়ে এতো ভিড় জমে গেল যে সামলানোই মুশকিল।

গরু বিক্রেতাদের সমস্যা হচ্ছে। যারা ক্রেতা তারাও বির’ক্ত হচ্ছেন। ফলে হাটের ইজারাদাররা আমাকে সরিয়ে নিয়ে গেল। বলল, আপনি স্টেজে বসে থাকুন। আম’রা আপনাকে গরু দেখাচ্ছি। এরপর বাজেট শুনে কয়েকটা গরু আমা’র সামনে নিয়ে এলো। আমি ৫৫ হাজার টাকা দিয়ে গরু কিনলাম।

জীবনের প্রথম নিজের টাকায় গরু কোরবানি দিচ্ছি। মনে হচ্ছিলো আমি কিছু একটা অর্জন করেছি। পুরান ঢাকার একজন ভালো কসাই ঠিক করলাম। কিন্তু তার খুব চাহিদা। বলল, আমা’র বাসায় আসতে তার দুপুর গড়িয়ে যাবে। আমি তাতেই রাজি। গরু বাসার নিচে বেঁধে রেখে অ’পেক্ষায় বসে আছি। সেখানে বিল্ডিংয়ের অন্যদেরও কয়েকটা গরু বাঁ’ধা। সবাই সকাল থেকে কোরবানি দিচ্ছেন। কিন্তু কসাই আসার পর আমা’র গরু আর খুঁজে পেলাম না। মন খুব খা’রাপ হয়ে গেল। জীবনের প্রথম কোরবানি। আর গরুটাই হারিয়ে গেল! এদিক-ওদিক খুঁজি কোথাও নেই। বাসার নিচে তখনও একটি গরু বাঁ’ধা ছিল।

গরুটা বেশ বড়। এদিকে বিল্ডিংয়ের সবাই জেনে গেছে আমা’র গরু হারিয়ে গেছে। সবাই বাসার নিচে জড়ো হলো। যেহেতু সবার কোরবানি দেওয়া হয়ে গেছে, ফলে তারা বলল, এই গরুটাই আমা’র। কিন্তু আমি স্পষ্ট বুঝতে পারছিলাম এমন গরু আমি কিনিনি। তাদের বুঝিয়ে বললাম। কিন্তু সবাই বলল, যেহেতু সবার কোরবানি দেওয়া হয়ে গেছে, সুতরাং ধরে নিন এটাই আপনার গরু। হুজুরও বলল, অ’সুবিধা নেই।

আল্লাহর নাম নিয়ে গরু কোরবানি দিলাম। সত্যি কথা বলতে, গরু কা’টা দেখলে আমা’র ভ’য় লাগে! তারপরও কোরবানি তো দিতেই হবে। গরু কা’টার পর অনেক মাংস হলো। পরে প্রতিবেশী একজন বলল, তাদের গরুর মাংস কম হয়েছে। তারাই ভুল করে আমা’র গরু কোরবানি দিয়ে ফেলেছে।

About Utsho

Check Also

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শা’রীরিক অ’বস্থার উ’ন্নতি

করোনায় আক্রান্ত হয়ে কলকাতার বেলভিউ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.