Breaking News

বেশি বয়সে সন্তান নেওয়ার যত ভালো দিক

বিয়ের পর অনেকেই তাড়াতাড়ি সন্তান নিয়ে নেন। আবার অনেকে দেরি করে মাতৃত্ব উপভোগ করেন।অনেকের ধারণা, বেশি বয়সে মা হলে নানা জটিলতা দেখা দেয়। এ ভাবনা থেকেই অনেকে অল্প বয়সে সন্তান নিয়ে নেন।

কিন্তু সব কিছুরই ভালো ও খারাপ দিক থাকে। বেশি বয়সে সন্তান নেওয়ারও রয়েছে ভালো কিছু দিক।ডেনমার্কের আর্হাস বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ৩৫-এর পর যারা মা হচ্ছেন, তারা অনেক ভালোভাবে লালন-পালন করতে পারছেন সন্তানদের।

প্রতিটি সন্তান যখন তাদের কৈশোর বয়স পার করে, তখন তাদের মাঝে নানা ধরনের মানসিক ও শারীরিক পরিবর্তন হয়ে থাকে।বেশি বয়সের মায়েরা কিশোর সন্তানদের প্রতি তুলনামূলকভাবে কম কড়া হয়ে থাকেন বলে ধরা পড়েছে এ সমীক্ষায়।

ফলে এমন মায়েদের কাছে মন খুলে খোলামেলাভাবে কথা বলতে পারে সন্তানরা। আর সন্তানের সুস্থভাবে বড় হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

আবার ৩৫ বছর বয়সের পর প্রথম সন্তান নিলে তার যত্ন নেওয়ার ক্ষমতা কমে যাবে এমনটিও বলেন অনেকেই।এদিক দিয়ে ভাবলে এ সমীক্ষাটিতে যা দেখাচ্ছে, সে কথা সব অর্থে ঠিক নয়। তবে বেশি বয়সে মা হওয়ার কিছু ভালো দিকও রয়েছে।

About Utsho

Check Also

হোটেলের বিছানার চাদর-বালিশ সাদা হওয়ার কারণ কী?

ঘুরতে নিশ্চয় ভালোবাসেন! আর দূরে কোথাও ঘুরতে যাওয়া মানেই হচ্ছে কোনো না কোনো হোটেলে রাত্রি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.