Breaking News

গায়ক আকবর অসুস্থ, কথা রাখেননি জায়েদ খান

ডায়াবেটিস, কিডনিসহ বিভিন্ন রোগে আ’ক্রান্ত গায়ক আকবরের শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে। বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানিয়েছেন শিল্পীর স্ত্রী’ কানিজ ফাতেমা সীমা।

তিনি বলেন, ‘বেশ কয়েক বছর ধরেই বিভিন্ন রোগে আ’ক্রান্ত আকবর। মাঝে হাসপাতা’লে ভর্তিও হয়েছেন। এখন করো’না পরিস্থিতির কারণে বাসায় থেকে চিকিৎসকের পরাম’র্শ মেনে চলছেন। কিছুদিন ধরে ফের অবস্থার অবনতি হয়েছে।’

এদিকে গত এপ্রিলের শেষের দিকে গণমাধ্যমে আকবরের অ’সুস্থতার খবর শোনার পর নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রীর প্যাকেট নিয়ে আকবরের মিরপুরের বাসা যান চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

সেইসঙ্গে অ’সুস্থ আকবরের চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়ার ঘোষণা দেন সাংবাদিকদের কাছে। তখন আকবরকে নগদ ১০ হাজার টাকা তুলে দেন এবং একবার ডাক্তার দেখানোর ব্যবস্থাও করে দেন, পরে আর খোঁজ নেননি।

আকবরের স্ত্রী’ কানিজ ফাতেমা বলেন, ‘জায়েদ ভাইকে প্রায় এক মাস ধরে নিয়মিত ফোন দিচ্ছি। আজকেও (বৃহস্পতিবার) কয়েকবার ফোন দিয়েছি, তিনি ফোন ধরেন না।

গত এপ্রিল মাসে আমাদের সঙ্গে দেখা করার পর একবার ডাক্তার দেখানোর ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন, পরে ডাক্তারের রিপোর্ট আসার পর তাকে ফোন দিয়েছি, তিনি ফোন ধরেন না।’

আকবরের চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে ২০ লাখ টাকার একটি অনুদানের সঞ্চয়পত্র দেওয়া হয়েছে, যেখান থেকে প্রতি তিন মাস পর পর ৪৯ হাজার টাকা তুলতে পারেন। এই টাকাতে চিকিৎসার খরচ মেটানো যাচ্ছে না বলে জানান কানিজ ফাতেমা।

তিনি বলেন, ‘এর আগে একবার লোনের টাকা নিয়ে ভা’রতে গিয়ে চিকিৎসা করিয়েছি। আবার ভা’রতে নিয়ে যেতে চাই। সঞ্চয়পত্রের টাকা ভাঙানো যাচ্ছে না। তিন মাস পর পর যে টাকা আসে, সেটা দিয়ে চিকিৎসার খরচ মেটানো যাচ্ছে না। প্রধানমন্ত্রীর অফিসে যোগাযোগ করে চেষ্টা করছি সঞ্চয়পত্রটা ভাঙানো যায় কিনা। এই টাকা’টা তুলতে পারলে ভা’রতে নিয়ে যাব।’

কি’শোর কুমা’রের ‘একদিন পাখি উড়ে যাবে’ নতুন করে গেয়েছিলেন আকবর আলী গাজী। সবার কাছে তিনি আকবর নামে পরিচিত। ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’তে প্রচারিত এই গান তাকে আলোচনায় নিয়ে আসে। এরপর ‘তোমা’র হাত পাখার বাতাসে’ গানটি দেশে ও দেশের বাইরের দর্শক-শ্রোতাদের কাছে তাকে পরিচিত করে তোলে।

সাত বছর ধরে ডায়াবেটিসে ভুগছেন আকবর। দুই বছর ধরে শরীরে বাসা বেঁধেছে জন্ডিস, র’ক্তের প্রদাহসহ নানা রোগ। তাই আগের মতো এখন আর স্টেজ শো করতে পারেন না। সর্বশেষ গান গেয়েছেন ১১ জানুয়ারি, সাভা’রে। এরপর থেকে বিছানায়। আজ বৃহস্পতিবার আকবর ফেইসবুকে লিখেছেন, ‘আমি খুবই অ’সুস্থ। সবাই আমা’র জন‍্য দোয়া করবেন।’

আকবরের স্ত্রী’ বলেন, ‘আগে থেকেই আকবর ডায়াবেটিসে আ’ক্রান্ত, এখন বেড়েছে। কিডনিতে সমস্যা দেখা দিয়েছে। দুই বছর ধরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা করাচ্ছি। কিন্তু এখন অবস্থা এমন পর্যায়ে, হাতে কোনো টাকা নেই। সাত মাস ধরে তো করো’নার কারণে আমাদের আয়-উপার্জন একেবারেই বন্ধ, যার জন্য আর্থিক সংকটে পড়তে হয়েছে। এখন ঔষুধ কিনতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে।’

যশোর শহরে রিকশা চালাতেন আকবর। খুলনার পাইকগাছায় জন্ম হলেও আকবরের বেড়ে ওঠা যশোরে। সেখানে টুকটাক গান করতেন। তবে গান নিয়ে ছোটবেলা থেকে হাতেখড়ি ছিল না। আকবরের ভরাট কণ্ঠের গানের কদর ছিল যশোর শহরে। সে কারণে স্টেজ শো হলে ডাক পেতেন। ২০০৩ সালে যশোর এম এম কলেজের একটি অনুষ্ঠানে গান গেয়েছিলেন আকবর।

বাগেরহাটের একজন আকবরের গান শুনে মুগ্ধ হন। তিনি জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’তে চিঠি লেখেন আকবরকে নিয়ে। এরপর ‘ইত্যাদি’ কর্তৃপক্ষ আকবরের সঙ্গে যোগাযোগ করে। ওই বছর ‘ইত্যাদিতে ‘একদিন পাখি উড়ে যাবে যে আকাশে’-কি’শোর কুমা’রের এই গানটি গেয়ে রাতারাতি পরিচিতি পেয়ে যান আকবর।

About Utsho

Check Also

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শা’রীরিক অ’বস্থার উ’ন্নতি

করোনায় আক্রান্ত হয়ে কলকাতার বেলভিউ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.